বিশেষ প্রতিনিধিঃ

৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বর সড়কে বঙ্গবন্ধু ভবনের সামনে স্থাপিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ।

মঙ্গলবার সকাল ৯টায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে দলের শীর্ষ নেতারা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

দলের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, আব্দুল মতিন খসরু, আব্দুর রহমান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমেদ হোসেন, মির্জা আজম, শাখাওয়াত হোসেন শফিক, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আব্দুস সবুর, মহিলা ও শিশু বিষয়ক সম্পাদক মেহের আফরোজ চুমকী, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজীত রায় নন্দী, শিক্ষা ও মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক সম্পাদক সামসুন্নাহার চাপা, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া সুলতানা, বন ও পরিবেশ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপ দপ্তর সম্পাদক সায়েম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আওয়ামী লীগের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, শ্রমিক লীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগ, যুব মহিলা লীগ, তাঁতী লীগ, আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগ, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শ্রদ্ধা নিবেদন করে।

এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস।

সকাল ১০টায় টুঙ্গিপাড়ায় আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানকের নেতৃত্বে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন ও সদস্য শাহাবউদ্দিন ফরাজীসহ নেতাকর্মীরা জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

ধানমণ্ডিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য আব্দুর রহমান বলেন, “অনেক আন্দোলন সংগ্রাম, সম্ভাবনা অর্জন সব কিছু মিলিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা এক অভিন্ন সত্তা। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগই বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিল।

“আজকে আমরা যে আকাঙ্ক্ষা ও ইচ্ছা নিয়ে ২৩শে জুন পালন করার প্রস্তুতি নিয়েছিলাম, করোনা মহামারীর কারণে সেটি সম্ভব হয়নি। এটাই বাস্তবতা এবং সেই বাস্তবতাকে মেনে নিয়েই সীমিত পরিসরে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছি।”

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, “আজ আওয়ামী লীগের একাত্তরতম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। আওয়ামী লীগ গণমানুষের মধ্য থেকে গড়ে উঠা একটি দল। বাংলাদেশের সমস্ত অর্জনের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নাম জড়িয়ে আছে। আওয়ামী লীগের সবচেয়ে বড় অর্জন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা সংগ্রাম। স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে বাংলাদেশ রাষ্ট্র রচনা করা।”

তিনি বলেন, “বঙ্গবন্ধু দেশ পরিচালনা শুরুর মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায় তাকে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে কয়েক দশক আগেই আমরা দক্ষিণ কেরিয়া, মালয়েশিয়ার মত রাষ্ট্রে পরিণত হতে পারতাম। আজকে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের লক্ষে তার তনয়া শেখ হাসিনা অক্লান্ত পরিশ্রম করে দেশকে অদম্য গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে। আজকে আওয়ামী লীগ একটি স্ফুলিঙ্গের নাম।”