বিজ্ঞপ্তি
জরুরী ভিত্তিতে সারাদেশে সাংবাদিক নিয়োগ. দেশের জনপ্রিয়  voiceofchandpur.com অনলাইন নিউজ-এ জরুরী ভিত্তিতে বাংলাদেশের প্রতিটি থানায়. একজন থানা প্রতিনিধি ও প্রতি জেলায় একজন জেলা প্রতিনিধি  নিয়োগ দেওয়া হবে। 
সংবাদ শিরোনাম
হাইমচরের চরভৈরবী লঞ্চ ঘাট সংলগ্ন খালের উপর কালভার্ট আছে, দু’পাশে নেই কোনো সড়ক

হাইমচরের চরভৈরবী লঞ্চ ঘাট সংলগ্ন খালের উপর কালভার্ট আছে, দু’পাশে নেই কোনো সড়ক

 

শরীফ মোঃ মাছুম বিল্লাহ

হাইমচর উপজেলার ৬ নং চরভৈরবী ইউনিয়নে লঞ্চ ঘাট সংলগ্ন ৭ নং ওয়ার্ডে খালের উপর ব্রিজ আছে কিন্তু দুইপাশে কোনো সড়ক না থাকায় ভোগান্তি পোহাচ্ছেন স্থানীয় সাধারণ জনগণ। এতে নানারকম সমস্যায় নিপতিত হচ্ছেন উপজেলার চরভৈরবীর সর্বসাধারণ সহ রায়পুর ও লক্ষীপুর এর পথচারীরা।

গতকাল মঙ্গলবার (১৫ জুন) সকালে সরেজমিনে গিয়ে সড়কবিহীন কালভার্টের এমন চিত্র দেখা গেছে। বছর খানেক পূর্বে ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের লঞ্চ ঘাট সংলগ্ন ও হোতারচকের পূর্বদিকে খালের উপর ১০ ফুট দৈর্ঘ্যের ব্রিজ নির্মাণ করা হয়। হাইমচর উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ৭নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহ মোঃ আব্দুল বারেক বকাউল এর বাড়ি সংলগ্ন নদী তীরবর্তী রাস্তা হতে চরভৈরবী হয়ে রায়পুর যাওয়ার পথে এমন সড়ক বিহীন কালভার্টি নজরে আসে। ব্রিজটির মূল অংশের কাজ শেষ হলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো পরিকল্পনা নেই। দুই পাশের সংযোগ গাইড অংশে নেই কোনো মাটি।

জানা যায়, ৬নং চরভৈরবি ইউনিয়ন ৯নং ওয়ার্ড, জালিয়ার চর হাঃ কান্দি, জালিয়ার চর কানু প্রধান কান্দি সহ বেশ কয়েকটি গ্রামের অসংখ্য সাধারণ মানুষ এ সড়কটি প্রতিনিয়ত ব্যবহার করেন। বর্ষার সময় এখানকার মানুষের চলাচলের একমাত্র উপায় হয়ে দাঁড়ায় নৌকা। বছরের পর বছর এই গ্রামের মানুষকে অপেক্ষা করতে হয়েছে একটি কালভার্টের জন্য। কিন্তু গত ১ বছর আগে ভুক্তভোগীদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন পূরণ হলেও সড়কটি ব্যবহারের স্বপ্ন পূরণ হয়নি আজও। অসমাপ্ত সংযোগ অংশের কাজ শেষ না হওয়ার কারণে কয়েকটি গ্রামের মানুষ এ কালভার্টটি ব্যবহার করতে পারছেন না। এতে প্রতিদিনই চরম দুর্ভোগের স্বীকার হচ্ছেন কয়েকটি গ্রামের হাজারো পথচারী।

কালভার্টের সাথে রাস্তার সংযোগ না থাকায় কোনো কৃষক তাদের উৎপাদিত পণ্য পরিবহন করতে পারছেন না। অনেকে বিকল্প রাস্তা হিসেবে দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে চরভৈরবি বাজার সহ বিভিন্ন স্থানে উৎপাদিত ফসল নিতে হচ্ছে। অথচ এই ব্রিজটি ব্যবহারের উপযোগী হলে তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ থেকে সহজতর হয়।

উপজেলার ৬নং চরভৈরবী ইউনিয়নের বাসিন্দা মানিক দেওয়ান, ইলিয়াস লিটন, জহির পাটোয়ারীসহ ভুক্তভোগীরা জানান, আমরা এই গ্রামের সাধারণ জনগণ খুবই অবহেলিত। আমাদের গ্রাম আছে, কিন্তু রাস্তা নেই। নেই উন্নত যোগাযোগব্যবস্থা। আমরা অনেক কষ্ট স্বীকার করে স্থানীয় সাবেক উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফেরদৌসী বেগম কে অনুরোধ করে এই স্থানে একটি কালভার্টের অনুমোদন নিয়ে এসেছি। দুই পাশের সংযোগ গাইডলাইনের কাজ এখনো পর্যন্ত শেষ না হওয়ায় আমরা এই কালভার্টটি ব্যবহার করতে পারছি না। এতে আমাদের চরম দুর্ভোগের মধ্যে দিনাতিপাত করতে হচ্ছে। এমতাবস্থায় দ্রুত সড়কের সাথে কালভার্টের সংযোগ স্থাপন করে আমাদের যাতায়াতের পথ সুগম করতে যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আহমদ আলী মাষ্টার জানান, কালভার্টের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পরও সড়কের সাথে সংযোগ না হওয়ার বিষয়টি আমরা অবগত হয়েছি। খুব শীঘ্রই এ সমস্যা সমাধান করে সড়কটি চলাচলের উপযোগী করা হবে বলে আশা রাখছি।

খবরটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2018 voiceofchandpur.com
Desing & Developed BY DHAKATECH.NET